শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২০ | ১০ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

কোভিড-১৯: বার্জার পেইন্টস করোনাভাইরাস অতিমারীতে রঙমিস্ত্রিদের সহযোগিতা করেছে

এ কে এম সাদেক নেওয়াজ, জেনারেল ম্যানেজার - মার্কেটিং, বার্জার পেইন্টস বাংলাদেশ লিমিটেড

বার্জার পেইন্টস বাংলাদেশ লিমিটেড

 

কোটিংসটুডে ডেস্কঃ বার্জার পেইন্টস বাংলাদেশ (বার্জার) করোনভাইরাস অতিমারী সংঘটিত হওয়ার প্রেক্ষিতে রঙমিস্ত্রি ও রঙ-ব্যবসায়ীদের সহায়তার জন্য অনেক উদ্যোগ নিয়ে এগিয়ে এসেছিল।

করোনভাইরাস (কোভিড-১৯) অতিমারী বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়ে বিশেষত গত তিন মাসে রঙমিস্ত্রি সহ দেশের লক্ষাধিক দৈনিক মজুরী উপার্জনকারী  জনগোষ্টি ব্যাপকভাবে প্রভাবিত হয়েছে।

সুরক্ষা নিশ্চিত করে রঙ-এর পরিষেবাগুলি নিশ্চিত করতে, বার্জার সম্প্রতি ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম (পিপিই), ৬৫,০০০ মাস্ক, ,৬,০০০ মি এক্সপার্ট হ্যান্ড স্যানিটাইজারস – বার্জার-এর একটি নতুন পণ্য এবং ৩০,০০০ গ্লাভস সরবরাহ করেছেন।

এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, বার্জার ১৭,০০০ চিত্রশিল্পীর জন্য প্রায় ২ কোটি টাকা জরুরি তহবিল সহায়তাও সরবরাহ করেছে।

এতদ্ব্যতীত, বার্জার ডিজিটাল হেলথ সার্ভিসেস – টনিকের সাথে “সম্পর্ক ক্লাব” এর সদস্যদের (রঙমিস্ত্রি) ডিজিটাল স্বাস্থ্য পরিষেবা আনতে সহযোগিতা করেছে।

প্যাকেজের আওতায় ক্লাবের সদস্যরা ইতিমধ্যে মৃত্যু বা দূর্ঘটনায় বাৎসরিক ১০০,০০০ টাকা নগদ ক্যাশব্যাক সুবিধা উপভোগ করছিলেন। হাসপাতালে ভর্তির সুযোগ না পেলে চব্বিশ ঘন্টা ডাক্তারের পরামর্শ এবং এক হাজারেরও বেশি অংশীদার আউটলেট থেকে ৫০% পর্যন্ত ছাড় ঔষধ কেনার সুবিধা।

কোভিড -১৯ বিশ্বব্যাপী অতিমারী হিসাবে পরিণত হওয়ার সাথে সাথে টোনিকের সাথে অংশীদার হয়ে বার্জার তাদের বিদ্যমান স্বাস্থ্য প্যাকেজের আওতায় এই নতুন রোগটি অন্তর্ভূক্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

পূর্ববর্তী স্বাস্থ্য প্যাকেজটি 2020 সালের 31 মার্চ শেষ হয়ে যাওয়ার কথা থাকলেও; কোভিড -১৯ এর কারনে চুক্তির সময় বাড়ানো হয়। বার্জার পেইন্টস বাংলাদেশ এবং টোনিক অনির্দিষ্টকালের জন্য, পরবর্তী সিদ্ধান্ত পর্যন্ত, এই স্বাস্থ্য প্যাকেজ চালু রাখবে।

বার্জার মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে ২৭,০০০ রঙমিস্ত্রিদের ‘ইন-ক্যান টোকেন’ এর মাধ্যমে ৪ কোটি টাকার উপর পুরস্কার পাঠিয়েছে। সাথে সাথে এ পুরস্কার প্রদানের ফ্রিকোয়েন্সি বাড়িয়েছে।

বার্জার তাদের নতুন স্বাস্থ্য বেনিফিটের আওতায় আনতে সারাদেশের গ্রামাঞ্চলে রঙমিস্ত্রিদের সাথে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

এছাড়াও, বার্জার পূর্বে ঘোষিত স্কিম থেকে সমস্ত গিফট সামগ্রীকে নগদ সুবিধায় রূপান্তরিত করে এবং আর্থিক মূল্য মোবাইল ব্যাংক একাউন্ট-এর মাধ্যমে রঙমিস্ত্রি ও ব্যবসায়ীদের মধ্যে বিতরন করে। এটি তাদের প্রয়োজনীয় প্রয়োজনীয়তা পূরণ করতে এবং যে কোনও জরুরি প্রয়োজন পূরণ করতে সহায়তা করে।

এ কে এম সাদেক নেওয়াজ, জেনারেল ম্যানেজার – মার্কেটিং, বার্জার পেইন্টস বাংলাদেশ লিমিটেড

এই উপলক্ষে, বার্জার পেইন্টস-এর জেনারেল ম্যানেজার (মার্কেটিং) এ কে এম সাদেক নাওয়াজ বলেছেন: “আমাদের রঙমিস্ত্রি সম্প্রদায়ের সমর্থন এবং প্রতিশ্রুতিবদ্ধতা আমাদের সারা বছর ধরে সফলতা অর্জনে সহায়তা করেছে এবং আমরা সর্বদা তাদের সহযোগিতা অব্যাহত রাখব, বিশেষত কোভিড-১৯ চলাকালীন।”

সংবাদটি আপনার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন